মনিটরের কিছু সমস্যা ও তার সমাধান

মনিটরের কিছু সমস্যা ও তার সমাধান

আমারা সবাই মনিটরের সাথে পরিচিত। এটি কম্পিউটারের একটি আউটপুট ডিভাইস যা ছাড়া কম্পিউটারে কাজ করা যায় না। বর্তমানে মনিটর শুধু কম্পিউটারের কাজের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। বরং অনেকেই মনিটরকে টিভি কার্ড দিয়ে টিভির বিকল্প হিসাবে ব্যাবহার করছে। আমরা সাধারনত দুই ধরনের মনিটর দেখি। ১. CRT (Cathode Ray Tube), ২.LCD (Liquid Crystal Display) । বর্তমানে বাজারে অনেক ব্র্যান্ড ও মডেলের Monitor পাওয়া যায়।

 মনিটরের কিছু সমস্যা ও তার সমাধান

বর্তমানের নতুন সকল মনিটর LCD (liquid crystal display) or LED (light-emitting diode) এর হয়ে থাকে। আমরা মনিটর ব্যাবহার করার সময় কিছু সমস্যার সম্মুখে পড়ি। আজ আমি মনিটরের কিছু সমস্যা ও তার অল্প কিছু সমাধান নিয়ে আলোচনা করব।

আমরা অনেক সময় দেখি মনিটরে ছবি আসে না। এটা কিছু কিছু কারণে হতে পারে। যেমন গ্রাফিক্স/ভিডিও কার্ডে কোনো সমস্যা থাকতে পারে বা মনিটরের ক্যাবল কানেকশন লুজ হয়ে যেতে পারে। তাই কানেকশনটি চেক করে দেখুন। অনেক সময় মনিটরের লেড লাইটি জ্বলে নিভে। তখন র্যা মের স্লট পরিবর্তন ও বায়োস সেটিংস রিসেট করে দেখুন।

সমস্যার সমাধান হয়ে যেতে পারে। আবার অনেক সময় মনিটরে ঝাপসা বা ছবি কাঁপে। তখন বুঝতে হবে মনিটর ও গ্রাফিক্স কার্ডের রিফ্রেশ রেটে অসামঞ্জস্য আছে। তাই সিস্টেম বুট হবার পর যখন Starting Windows মেসেজটি আসে তখনই কী-বোর্ডের F8 চেপে সেফ মোডে উইন্ডোজ চালু করুন এবং গ্রাফিক্স/ডিসপ্লে প্রোপার্টিজে গিয়ে রিফ্রেশ রেট ঠিক করুন।

আবার মাঝে মধ্যে গ্রাফিক্স কার্ডের সমস্যা হতে পারে। সমস্যাটি বুঝার জন্য পিসির পাওয়ার সুইচ অন করুন। যদি তিনটি শর্ট বীপ শুনতে পান তাহলে বুঝতে হবে গ্রাফিক্স কার্ডে সমস্যা আছে। গ্রাফিক্স কার্ডটি খুলে অন্য পিসিতে লাগিয়ে নিশ্চিত হয়ে নিন এটি ঠিক আছে কিনা।
আর যদি বিল্টইন গ্রাফিক্স হয় তাহলে আলাদা গ্রাফিক্স কার্ড এজিপি স্লটে লাগিয়ে টেস্ট করতে পারেন। মনিটরে মাঝেমধ্যে অস্পষ্ট কালার ও প্যাটার্নের কিছু সমস্যা হয়ে থাকে। যদি অস্পষ্ট কালার ও প্যাটার্ন দেখা যায় এবং চালু করতে গেলে মনিটর কাঁপতে থাকে বা চালুই হয় না তখন বুঝতে হবে ডাইরেক্ট এক্স পুরাতন অথবা গ্রাফিক্স কার্ডের লেটেস্ট ড্রাইভার নেই। তাই সবসময় লেটেস্ট ডাইরেক্ট এক্স ব্যবহার করুন ও গ্রাফিক্স কার্ড ড্রাইভার আপডেটেড রাখুন। এরপরও সমস্যা থাকলে বুঝতে হবে আপনার ভিডিও কার্ড ও উইন্ডোজের মধ্যে কম্পাটিবিলিটিতে সমস্যা আছে।
যদি এসব সমস্যা গুলো সমাধানের পরও মনিটর ঠিক না হয় তাহলে অভিজ্ঞ কাউকে দেখান অথবা যদি ওয়ারেন্টি থাকে তাহলে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। তাৎক্ষনিক ওয়ারেন্টিতে পাঠিয়ে দিন। কিন্তু মনে রাখবেন ভেঙে যাওয়া অথবা বৈদ্যুতিক ত্রুটির করণে যদি কোন পার্টস পুড়ে যায় তা কিন্তু ওয়ারেন্টির আওতায় পড়বে না।

আশা করি মনিটরে এ ধরনের সমস্যা হলে উপরোক্ত সমাধান গুলো চেষ্টা করবেন। ধন্যবাদ।

Be the first to comment